LOADING

Type to search

সিকিম ভ্রমন করবেন যেভাবে

সিকিম ভ্রমন করবেন যেভাবে

Share
Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

নূ্ন্যতম জনবসতি এবং পাশাপাশি ভারতের দ্বিতীয় ক্ষুদ্রতম রাজ্য হলেও সিকিম, প্রকৃতি প্রেমিকদের কাছে এক স্বর্গ। গ্যাংটক (Gangtok) হল সিকিম এর রাজধানী ও বৃহত্তম শহর। পূর্ব হিমালয় পর্বতশ্রেণির শিবালিক পর্বতে ১৪৩৭ মিটার উচ্চতায় এই গ্যাংটকের অবস্থান। মাত্র ৩০ হাজার বাসিন্দার এই শহরটির প্রাকৃতিক সৌন্দর্য কথায় বর্ণনা করে শেষ করা অসম্ভব।

বিভিন্ন কারণে বাংলাদেশীদের জন্য সিকিম ভ্রমন নিষিদ্ধ থাকলেও কিছুদিন আগে তা প্রত্যাহার করা হয়। তবে সিকিম ভ্রমনে যাওয়ার আগে অবশ্যয় পারমিশন নিয়ে যেতে ভুলবেন না। কিভাবে সিকিম যাওয়ার পারমিশন নিবেন তা নিয়েই আজকের আয়োজন।

১। সিকিমের পারমিশন নির্দেশাবলীঃ

যারা সিকিম যাওয়ার জন্য পারমিশন নিতে চাচ্ছেন তারা ৩ পেইজের ফরমটি ফিলাপ করে এক কপি পাসপোর্ট সাইজ ছবি, পাসপোর্ট ও ভিসা থাকলে ভিসার স্কেন কপিসহ যমুনা ফিউচার পার্কে IVAC জমা দিবেন।

(www.ivacbd.com ওয়েবসাইটের বাদিকের অন্যান্য ফর্ম টি ক্লিক করলে “সুরক্ষিত/সীমাবদ্ধ স্থানে অনুমতির আবেদনপত্র” নামের প্রথম ফর্ম টা সঠিকভাবে পূর্ন করে জমা দিতে হবে।)

সব কিছু ঠিক থাকলে জমা দেয়ার ৭ দিন পর, ৭-১০ দিনের জন্য সিকিমের পারমিশন পেয়ে যাবেন।

পারমিশন চার্জ – ৩০০ টাকা

সিকিম, অরুণাচল প্রদেশসহ ভারতের সীমাবদ্ধ বা সংরক্ষিত এলাকাসমূহে পারমিশন কিভাবে নিতে হবে তার একটা নির্দেশাবলী ইন্ডিয়ান ভিসা এপ্লিকেশন সেন্টারের (IVAC) ওয়েবসাইটে দেয়া আছে। নির্দেশাবলীর লিংক নিচে দেয়া হলো।

https://www.hcidhaka.gov.in/pages…

২। সিকিমে ঢুকার পর কিভাবে পারমিশন গুলো নিতে হয়।

সিকিম যাবার পথে সিকিম গেট-এ সব গাড়ি থামিয়ে জিজ্ঞেস করা হয়। সিকিমিজ ও ভারতীয় নাগরিক বাদে সবার সিকিমে ঢোকার জন্য Foreigners Reporting Office থেকে “Inner line permite/ Respected area permite” নিতে হয়। বর্তমানে যেটা বাংলাদেশে IVAC (Indian Visa Application Center) থেকে দেয়া হচ্ছে। বাংলাদেশ থেকে যে পারমিশন পেপার দেয়া হচ্ছে ওটা শো করলে তারা পাসপোর্টে একটি ছিল মেরে দিবে। তারপর আপনি সিকিমে ঢুকে যেতে পারবেন।

মনে রাখবেন এটা শুধু সিকিমে ঢুকা, গ্যাংটক শহর এবং আশেপাশের থাকা-ঘুরার পারমিশন। এই পারমিশন দিয়ে আপনি নাথুলা পাস, বাবা মন্দির, ছাঙ্গু লেক, লাচেন, গুরুদগমার লেক, লাচুং, জিরোপয়েন্ট, ইয়ামিথ্যাং ভ্যালি যেতে পারবেননা। এগুলোর জন্য আলাদা আলাদা পারমিশন নিতে হবে গ্যাংটক শহর থেকে। গ্যাংটক শহরে সরকার অনুমোদিত অনেক এজেন্সি আছে যাদের দিয়ে এই পারমিশন গুলো নিতে হয় এবং গাড়ি ভাড়া করতে হয়। প্রতিটা পারমিশন এর সময় ৩কপি পাসপোর্ট সাইজ ছবি, ১টি পাসপোর্টের ফটোকপি ও ১টি ভিসার ফটোকপি জমা দিতে হয়। সাধারণত এজেন্সিগুলো প্রতিটা পারমিশনের জন্য ১০০-২০০ রুপি নিয়ে থাকে।

ফরেনারদের জন্য নাথুলা পাস বন্ধ।

প্রকৃতিকে ভালোবাসুন,
পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখুন।


Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
Tags:

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *