LOADING

Type to search

১ দিনের সফরে ঘুরে আসুন সোনারগাঁও ও এর আশপাশ

১ দিনের সফরে ঘুরে আসুন সোনারগাঁও ও এর আশপাশ

JS 03/09/2018
Share
Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

#ভ্রমণবৃত্তান্তঃঈদের ছুটিতে যারা ঢাকার আশেপাশে ঘুরে আসতে চান তারা চাইলে ১ দিনের সোনারগাঁও সফর এ সহজেই ঘুরে আসতে পারেন হাজার বছরের পুরোনো সুবর্ণগ্রাম<সোনারগাঁলোকশিল্প জাদুঘর, প্রাচীন অর্থনৈতিক নগরী পানামসিটি, তাজমহল, পিরামিড, এবং বারুদী লোকনাথ আশ্রমচলুন তাহলে দেখে নিই ট্যুর গাইডসহ কিছু সতর্কতাও 

প্রথমেই আপনাকে গুলিস্তানে এসে মোগড়াপাড়াগামী দোয়েল কিংবা বোরাক পরিবহনের বাসে উঠতে হবে। বাসে জানালার পাশে বসলে মোবাইল ফোন খুব সাবধানে রাখবেনযতদূর শুনেছি হঠাৎ করে জানালা দিয়ে ফোন টান দিয়ে নিয়ে যাওয়ার রেকর্ড আছে এই রুটে। বাস আপনাকে মোগড়াপাড়া চৌরাস্তায় নামিয়ে দিবে। ওখান থেকে রাস্তা ক্রস করে এসে রিকশা নিয়ে নিবেন সোনারগাঁও কিংবা পানামসিটি যাওয়ার জন্যসোনারগাঁও-পানামসিটি দুটোই গ্রীষ্মকালীন সময়ে সকাল ১০ টা থেকে সন্ধ্যা ৬ টা পর্যন্ত খোলা থাকে। তবে পানামসিটিতে কোন সাপ্তাহিক বন্ধ না থাকলেও সোনারগাঁও বুধবৃহস্পতিবার বন্ধ থাকে। তাজমহলপিরামিড-বারুদী আশ্রম প্রতিদিনই খোলা পাবেন সন্ধ্যা ৭ টা পর্যন্ত

সোনারগাঁও লোকশিল্প জাদুঘরের ভিতরের দোকানগুলোতে জামদানি ও হাতের কাজ করা অনেক সুন্দর সুন্দর শাড়ি ও জামাকাপড় পাওয়া যায়। তবে খেয়াল রাখবেন জাদুঘর থেকে বের হয়ে “বিক্রয়কেন্দ্র” লিখা মার্কেট থেকে কিছু কিনবেন না, ওখানে জিনিসের অনেক দাম। হাঁটতে থাকুন, ২ নং গেটের কাছের মার্কেট থেকে দোকান যাচাই করে জিনিস কিনবেন। প্রতিটা দোকানে গেলে দামের হেরফের বুঝতে পারবেন

দুপুরে খাওয়ার জন্য সোনারগাঁও এর পাশের রেস্টুরেন্ট গুলো মোটামুটি মানের তবে খাবারের দাম অনেক বেশি।
আমরা অবশ্য ওখান থেকেই চিকেন বিরিয়ানি
খেয়েছিলাম শেষমেষভুলেও ভিতরের রেস্টুরেন্টগুলোতে খেতে যাবেন না, আর আপনারা চাইলে বাসা থেকে দুপুরের খাবার নিয়ে যেতে পারবেন যদিও ভারী খাবার নিয়ে সোনারগাঁওয়ের ভিতরে ঢুকতে পারবেন না। এক্ষেত্রে আপনাকে ১ নং গেটের পাশের ফুসকার দোকানগুলোতে খাবার রেখে যেতে হবে। সেক্ষেত্রে তাদেরকে কিছু বকশিশ দেয়া লাগবে। পরে বেরিয়ে খেয়ে নিলেন বা দারোয়ান মামাদেরকে রিকুয়েস্ট করে বের হয়ে খেয়েদেয়ে পুনরায় ঢুকতে পারবেন। তবে বেশিজন হলে মামারা বের হয়ে টিকিটছাড়া পুনরায় ঢুকতে দিবেন কিনা আমি শিওর বলতে পারছি না।

সোনারগাঁও থেকে বেরিয়ে বাধন বাসে করে মদনপুর চলে আসুন। মদনপুরে নেমে রাস্তা ক্রস করে অটোতে করে বস্তল চলে আসবেনভুলেও তাজমহলপিরামিড যাওয়ার জন্য অটো, সিএনজি, রিকশা চালকদের কথায় কোন কিছু রিজার্ভ করতে যাবেন না। তাহলে অনেক বেশি খরচ পড়বে। কারো কথা না শুনে আপনি বস্তল যাওয়ার অটোতে উঠে পড়বেনবস্তল নেমে রিকশা নিয়ে নিন তাজমহলপিরামিড যাওয়ার জন্যএরপর একইভাবে রিকশা নিয়ে বস্তল ব্যাক করে বারুদী যাওয়ার সিএনজিতে উঠে পড়ুন। বারুদী লোকনাথ আশ্রম দেখা শেষে বাজার থেকে মোগড়াপাড়া চৌরাস্তা যাওয়ার সিএনজিতে উঠে পড়ুন। নিচে জনপ্রতি কোথায় কত খরচ হয়েছিল দিয়ে দিলাম

গুলিস্তান<দোয়েল বাস> -মোগড়াপাড়া চৌরাস্তা (৪৩৳) –সোনারগাঁও জাদুঘর <রিকশা> (৩০৳)-পানামাসিটি <রিকশা> (১৫৳) প্রবেশ টিকেট (১৫৳)- সোনারগাঁও ব্যাক– <রিকশা> (২০৳)-প্রবেশ টিকেট-(৩০৳)-দুপুরের খাবার (বিরিয়ানি-১৫০৳)-মদনপুর <বাধন বাস> (১৫৳) –বস্তল <অটো> (২০৳) –তাজমহল,পিরামিড <রিকশা> (৪০৳) প্রবেশ টিকেট (১৫০৳) –আবার বস্তল <রিকশা> (৪০৳) -বারুদী আশ্রম<সিএনজি> (৩০৳)-মোগড়াপাড়া চৌরাস্তা <সিএনজি> (৩৫৳) –গুলিস্তান <দোয়েল বাস> (৪৩৳)।

মোট খরচঃ জনপ্রতি ৬৭৬ টাকা।
বলে রাখা ভাল ঈদের মধ্যে গেলে রিকশা, অটো, সিএনজিতে ৫-১০ টাকা এদিক সেদিক হতে পারে।

উপরের ট্যুর গাইডটি ১ বা ২ জনের জন্য পারফেক্ট। আপনারা যদি দলবেধে ৫-৬ জন যান সেক্ষেত্রে আমার দেয়া যাতায়াত ভাড়ার সাথে সামন্জস্য রেখে আপনারা অটো কিংবা সিএনজি রিজার্ভ নিতে পারেন। তবে ভাল বুদ্ধি হবে রিজার্ভ না নিয়ে জনপ্রতি ভাড়া মিটিয়ে দিলেন তখন!

শেষকথা হল, দয়া করে ট্যুরে গিয়ে যত্রতত্র খাবারের প্যাকেট ফেলে পরিবেশ দূষিত করবেন না। আপনার পরে দেশবিদেশের আরও অনেকেই ওখানে যাবেন বিষয়টি মাথায় রাখবেনআর পারলে কিছু প্যাকেট সরিয়ে ফেলে আসুন না, ক্ষতি কি! তাহলে আপনার পরে যাওয়া লোকটিই হয়ত আপনাকে মনের অজান্তে একটা ধন্যবাদ দিয়ে ফেলবে 🙂
সবাইকে ঈদের আগাম শুভেচ্ছা। আপনাদের যাত্রা শুভ হোক। হ্যাপি ট্রাভেলিং।


Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
JS

ঘুরে দেখার নেশায় ছুটি। প্রকৃতিকে উপভোগ করি।

    1

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *